Computer Tricks

কম্পিউটার টিপস /ট্রিক্স ১

পেনড্রাইভ/মেমোরী কার্ডে লুকানো থাকা ফাইল উদ্ধার  করার জন্য search option গিয়ে “.” শুধু ডট লিখে search দিন। সব ফাইল চলে আসবে।

কম্পিউটার হয়ে যাক আরও গতিশীল

  • GO “ RUN “ – tree লিখে এন্টার করুন।
  • GO “ RUN “ – prefetch লিখে এন্টার করুন।( একটা নতুন উইন্ডো আসবে সব ফোল্ডার এবং ফাইল ডিলিট করুন।
  • GO “ RUN “ – temp লিখে এন্টার করুন। এখন টেম্পোরারী ফাইল গুলো ডিলিট করুন।
  • GO “ RUN “ – %temp% লিখে এন্টার করুন। এখন টেম্পোরারী ফাইল গুলো ডিলিট করুন।

প্রতিটা ড্রাইভের উপর মাউসের রাইট বাটুন ক্লিক করুন তারপুর প্রপারট্রিজ এ ক্লিক করুন ডিস্ক ক্লিনআপ এ ক্লিক করুন। আশা করি আপনার কম্পিটার এ অনেক গতি বেড়ে যাবে। পুরাতন কম্পিউটার এর জন্য বেশী কার্যকরী।

Computer কেন এবং কিভাবে Hang হয়?

  • কম্পিউটারের প্রসেসরের মান বা কাজের তুলনায় স্পীড কম হলে ।
  • কম্পিউটার র‌্যামের তুলনায় বেশী পরিমাণ কাজ করলে।আপনার কম্পিউটার র‌্যাম এর পরিমাণ কম কিন্তু আপনি অনেক বড় বড় কয়েকটি প্রোগ্রাম চালু করলেন। তাহলে তো হবেই।
  • কম্পিউটার হার্ডডিক্স এর কানেকশন এবং প্রসেসরের কানেকশন ঠিকমত না হলে, বার বার একই সমস্যা হতে পারে
  • যদি বার বার হ্যাং হয় তাহলে Cooling Fan টা check করেন এটা স্পীডে গুরছে কিনা।
  • hard diskএ Bad sector থাকলে বা অন্য কোন হার্ডওয়্যারে ত্রুটি থাকলে।
  • অপারেটং সিস্টেমে ত্রুটি থাকলে মানে…কোনো সিস্টেম ফাইল file delete হয়ে যাওয়াকে বুঝায়। যার কারণে কম্পিউটারে সমস্যা হতে পারে।
  • কম্পিউটার ভাইরাস দ্বারা আক্রান্ত হলে সাধারণত Hang হতে পারে।

এই কারণেই কম্পিউটারে বেশী Hangহয়। আর এই ভাইরাস অপারেটিং সিস্টেমের কিছু ফাইলের কার্যপদ্ধতিকে বন্ধ করে দেয় যার কারণে কম্পিউটার প্রয়ই হ্যাং হয়। কম্পিউটারে অতি উচ্চ মানের এন্টি ভাইরাস ব্যবহার করুন।

  • হাই গ্রাফিক্স সম্পন্ন গেইম চালালে তখন র‌্যাম সম্পূর্ণ লোড হয়ে যায় এবং hang হওয়ার সম্ভনা থকে।
  • কম্পিউটারের ফাইলগুলো এলোমেলোভাবে সাজানো থাকলে তার জন্য hang হওয়ার সম্ভনা থকে। refresh চাপেন এবং RUN এ গিয়ে tree চাপেন।

কম্পিউটার টিপস /ট্রিক্স ২

মনিটর এ ছবি দেখা না গেলে- Confirm হন যে মনিটরটি on. এবং  brightness control চেক করুন , এবং এটি ঠিক মত সেট হয়েছে কিনা খেয়াল করুন।  মনিটর এর সকল কানেকশন চেক করুন এবং  surge protector ও surge protector টি চালু কি না চেক করুন।

কম্পিউটার টিপস /ট্রিক্স ৩

কিছু সময় পরপর Start থেকে Run-এ ক্লিক করে tree লিখে ok করুন। এতে র‌্যামের কার্যক্ষমতা বাড়ে।

কম্পিউটার টিপস /ট্রিক্স ৪

Ctrl + Alt + Delete চেপে বা টাস্কবারে মাউস রেখে ডান বাটনে ক্লিক করে Task Manager খুলুন।তারপর Processes-এ ক্লিক করুন। অনেকগুলো প্রোগ্রাম-এর তালিকা দেখতে পাবেন। এর মধ্যে বর্তমানে যে প্রোগ্রামগুলো কাজে লাগছে না সেগুলো নির্বাচন করে End Process-এ ক্লিক করে বন্ধ করে দেন। যদি ভুল করে কোনো প্রোগ্রাম বন্ধ করে দেন এবং এতে যদি অপারেটিং সিস্টেম এর কোন সমস্যা হয় তাহলে কম্পিউটার রিস্টার্ট করুন।

কম্পিউটার টিপস /ট্রিক্স ৫

প্রতি সপ্তাহ একবার আপনার hard drive Defragment এবং disk cleanup করুন।(1. click start – all programs – accessori – system utility – Defragment drive utility
2. click start – all programs – accessori – disk cleanup)

কম্পিউটার টিপস /ট্রিক্স ৬

পিসি সেফ মোডে চালু হলে কি করবেন?

উইন্ডোজ অপারেটিং সিস্টেম স্বাভাবিকভাবে চালু হতে না পারলে অনেক সময় সেফ মোডে চালু হয়৷ সেফ মোড হলো উইন্ডোজের বিশেষ একটি অবস্থা যখন এটি একেবারে প্রয়োজনীয় ফাইল এবং ড্রাইভারসমূহ নিয়ে লোড হয়৷ বলা যেতে পারে ‘বিপদকালীন‘ অবস্থা যখন নূন্যতম রসদ দিয়ে প্রাণে বেচে থাকাটাই গুরুত্বপূর্ণ৷ সেফ মোডে উইন্ডোজ চালু হলে প্রাথমিক ভাবে রিস্টার্ট করে দেখা যেতে পারে পুনরায় স্বাভাবিকভাবে তা চালু হয় কিনা৷ বার বার করে ব্যর্থ হলে বুঝতে হবে সমস্যাটি গুরুতর৷ উইন্ডোজের কোনো গুরুত্বপূর্ণ ফাইলের ক্ষতি বা হার্ডওয়ারের সমস্যার কারণে তা হতে পারে৷ কোনো নতুন হার্ডওয়্যার সেটিংস পরিবর্তনের ফলে যদি উইন্ডোজ বার বার সেফ মোডে চলে যায় তবে পূর্ববর্তী সেটিংসটি রিভার্স করে ফেলাই শ্রেয়৷ সেফ মোডকে এজন্য ডায়াগনিস্টিক মোডও বলা হয়৷ উইন্ডোজ চালু হওয়ার সময় F8 চাপলে যে মেনু আসে সেখান থেকে সেফ মোড চালু করা যেতে পরে৷ তবে আগেই বলা হয়েছে; এটি ডায়াগনিস্টিক মোড৷ এই মোডে বাড়তি কোনো কিছুই যেমন- সাউন্ড, প্রিন্টার, হাই কালার ডিসপ্লে ইত্যাদি কিছুই কাজ করবে না৷.

কম্পিউটার টিপস /ট্রিক্স ৭

আপনার hard disk এ দুইটি partition করুন এবং সেকেন্ড পার্টিশনে Install করুন সব large Softwares (like PSP, Photoshop, 3DS Max etc). Windows এর জন্য আপনার C Drive যথাসম্ভব খালি রাখুন যাতে Windows RAM full হওয়ার পর আপনার C Drive কে virtual memory হিসেবে use করতে পারে।

কম্পিউটার টিপস /ট্রিক্স ৮

আপনার পিসি পুরো বুট না হওয়া পযর্ন্ত কোন application open করবেননা।

কম্পিউটার টিপস /ট্রিক্স ৯

যে কোন application close করার পর আপনার desktop F5 চেপে refresh করে নিন, যা আপনার পিসির RAM হতে unused files remove করবে।

কম্পিউটার টিপস /ট্রিক্স ১০

.ডেস্কটপ wallpaper হিসেবে very large file size image ব্যবহার হতে বিরত থাকুন।
ডেস্কটপে অতিরিক্ত shortcuts রাখবেননা। আপনি জানেন কি ডেস্কটপে ব্যবহৃত প্রতিটি shortcut up to 500 bytes of RAM ব্যবহার করে।

কম্পিউটার টিপস /ট্রিক্স ১১

প্রতিদিন আপনার ডেস্কটপের recycle bin Empty করে রাখুন। (The files are not really deleted from your hard drive until you empty the recycle bin.)

কম্পিউটার টিপস /ট্রিক্স ১২

অনেক সময় PC’র র‍্যাম কম থাকলে PC slow হয়ে যায়। ভার্চুয়াল মেমোরি বাড়িয়ে কিছুতা গতি বাড়ানো যায়। এর জন্য- My Computer এ মাউস রেখে right button ক্লিক করে properties-e যান। এখন advance এ ক্লিক করে performance এর settings এ ক্লিক করুন। আবার advance -এ ক্লিক করুন। এখন change এ ক্লিক করে নতুন উইন্ডো এলে সেটির Initial size ও Maximum size-এ আপনার ইচ্ছামত size লিখে set-এ ক্লিক করে ok দিয়ে বেরিয়ে আসুন। তবে Initial size এ আপনার PC’র র‍্যামের দ্বিগুণ এবং Maximum size এ র‍্যামের চারগুন দিলে ভাল হয়।

কম্পিউটার টিপস /ট্রিক্স ১৩

এ ছাড়াও কম্পিউটার ভাল রাখার কিছু টিপ্স জেনে নিন

  •  প্রতি ১ বা ২ মাস পর পর কম্পিউটার খুলে সব parts মুছে নতুন করে লাগিয়ে দিন।
  • Ram খুলে পাতলা তুলো দ্বারা মুছে নতুন করে লাগিয়ে নিন।
  • কম্পিউটারের উপর কোন ভারী কিছু রাখবেন না।
  • রাতে ঘুমাবার সময় কম্পিউটার shut down করে দিন।
  • বিদু্ৎ চলে গেলে যেন কম্পিউটার বন্ধ না হয়ে যায় সে জন্য UPS ব্যবহার করা উচিৎ।
  • কম্পিউটার VIRUS দূর করার জন্য অ্যান্টিভাইরাস ব্যবহার করা উচিৎ।
  • কম্পিউটারকে আলো-বাতাসপূর্ণ জায়গায় রাখুন।
  • প্রতিদিন মনিটর, বিশেষ করে LCD মনিটর একবার করে মুছে রাখবেন।
  • অনেকে কম্পিউটার চলার সময়ও CPU-র উপর আলাদা পর্দা দিয়ে রাখেন, যাতে ময়লা প্রবেশ না করে। এতে আরও ক্ষতিই হয়।
  • ওয়ালপেপার হিসেবে এমন ছবি সেট করুন, যা আপনার চোখকে আরাম দেয়। ওয়ালপেপার সাইজে যত ছোট হবে, আপনার কম্পিউটারের গতির জন্য ততই ভাল।
  • নিয়মিত ‘কুলিং ফ্যান’ মুছে পরিষ্কার করে রাখুন।

কম্পিউটার টিপস /ট্রিক্স ১৪

কম্পিউটারের র‌্যা ম কম থাকলে কম্পিউটার ধীর গতির হয়ে যায়। ভার্চুয়াল মেমোরি বাড়িয়ে কম্পিউটার গতি কিছুটা বাড়ানো যায়। ভার্চুয়াল মেমোরি বাড়ানোর জন্য প্রথমে My computer-এ মাউস রেখে ডান বাটনে ক্লিক করে properties-এ যান। এখন Advance-এ ক্লিক করে performance এর settings-এ ক্লিক করুন। আবার Advance-এ ক্লিক করুন। এখন change-এ ক্লিক করে নতুন উইন্ডো এলে সেটির Initial size ও Maximum size-এ আপনার ইচ্ছামত size লিখে set-এ ক্লিক করে ok দিয়ে বেরিয়ে আসুন। তবে Initial size-এ আপনার কম্পিউটারের র‌্যা মের size-এর দ্বিগুন এবং Maximum size-এ র‌্যা মের size-এর চারগুন দিলে ভাল হয়।

কম্পিউটার টিপস /ট্রিক্স ১৫

যে কোন Software uninstall করার সময় ……কন্ট্রোল প্যানেলে যান। Add or Remove-এ দুই ক্লিক করুন। Add/Remove windows components-এ ক্লিক করুন। নতুন যে উইন্ডো আসবে সেটির বাম পাশ থেকে অদরকারি প্রোগ্রামগুলোর পাশের টিক চিহ্ন তুলে দিন। তারপর Accessories and Utilities নির্বাচন করে Details-এ ক্লিক করুন। নতুন যে উইন্ডো আসবে সেটি থেকে যে প্রোগ্রামগুলো আপনার কাজে লাগে না সেগুলোর টিক চিহ্ন তুলে দিয়ে OK করুন। এখন next-এ ক্লিক করুন। Successful meassage আসলে Finish-এ ক্লিক করুন।

কম্পিউটার টিপস /ট্রিক্স ১৬

প্রত্যেকবার কম্পিউটার অন করার সময় বিভিন্ন ড্রাইভ চেকিং অপশন আসে যেমনঃ- Checking Drive E:

কম্পিউটার টিপস /ট্রিক্স ১৭

Press any key to canceled এর সমাধান…..
>স্টার্ট থেকে রানে লিখুন সিএমডি (cmd) এবার এন্টার চাপুন।
>এরপর লিখুন সিএইচকেএনটিএফএস-স্পেস-ড্রাইভ লেটার (E:) স্পেস ব্যাকস্লাস(/)এক্স অর্থাতঃ (chkntfs E: /X) লিখে এন্টার দিন ব্যাস এবার কম্পিউটার রিস্টার্ট দিন।

কম্পিউটার টিপস /ট্রিক্স ১৮

তৈরি করুন একটি অদৃশ্য ফোল্ডার একটি New Folder তৈরি করুন, যখন New Folder লিখাটি নীল রং এ সিলেক্ট করা থাকবে তখন keyboard এর ডান পাশের Alt চেপে ধরে 0160 চাপুন, এবার Alt key থেকে আঙুল সরিয়ে নিন এবং Enter এ ক্লিক করুন। এবার দেখুন একটি নাম ছাড়া ফোল্ডার তৈরি হয়েছে । এখন এই নাম ছাড়া Folder এ mouse এর right buttome ক্লিক করে Properties এ যান, তারপর customize > change icon এ ক্লিক করুন, তারপর icon window থেকে একটি blank icon সিলেক্ট করুন এবং ok তে ক্লিক করুন। এবার দেখুন আপনি একটি অদৃশ্য Folder তৈরি করেছেন।

কম্পিউটার টিপস /ট্রিক্স ১৯

অনেক সময় START MENU SHOW করতে দেরি হয় বা LOCAL   DISK ‍এর যে কোন পেজ ওপেন করতে দেরি হয় যা খুব বিরক্তিকর। ‍এ‍ই সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে নিচের পথ অনুসরন করুন। প্রথমে START MENU থেকে RUN এ ক্লিক করুন। তাতে REGEDIT.EXE লিখে OK করুন। REGISTRY EDITOR BOX আসবে, সেখান থেকে HKEY_CURRENT_USER ট্যাবে ক্লিক করুন তারপর সেখান থেকে  CONTROL PANEL হয়ে DESKTOP ক্লিক করুন। DESKTOP এ ক্লিক করার পর ডান পাশের BINARY DATA হতে MENUSHOWDELAY তে ডাবল ক্লিক করুন। যে EDIT STRING BOX ‍আসবে তা হতে VALUE DATA “0” করে OK করুন। তারপর কম্পিউটার RESTART করুন। দেখবেন ‍আপনার কম্পিউটার ‍আগের তুলোনায় দ্রুত গতি সম্পন্ন হয়েছে ‍এবং LOCAL DISK পেজ OPEN হতে সময় কম নিচ্ছে।

কম্পিউটার টিপস /ট্রিক্স ২০

কি বোর্ডের সাহায্যে চালু করুন কম্পিউটার
আমরা সাধারণত CPU-এর পাওয়ার বাটন চেপে কম্পিউটার চালু করি। কিন্তু অনেক সময় দেখা যায়, পাওয়ার বাটনে কোনো সমস্যা থাকলে কম্পিউটার চালু করতে অনেক কষ্ট হয়। আমরা ইচ্ছা করলে CPU-এর পাওয়ার বাটন না চেপে কি-বোর্ডের সাহায্যে খুব সহজেই কম্পিউটার চালু করতে পারি। এর জন্য প্রথমে কম্পিউটার চালু হওয়ার সময় কি-বোর্ড থেকে Del বাটন চেপে Bios-এ প্রবেশ করুন। তারপর Power Management Setup নির্বাচন করে Enter চাপুন। এখন Power on my keyboard নির্বাচন করে Enter দিন। Password নির্বাচন করে Enter দিন। Enter Password-এ কোনো একটি কি পাসওয়ার্ড হিসেবে দিয়ে সেভ (F10) করে বেরিয়ে আসুন। এখন কি-বোর্ড থেকে সেই পাসওয়ার্ড কি চেপে কম্পিউটার চালু করতে পারেন। এই পদ্ধতিটি গিগাবাইট মাদারবোর্ডের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য। অন্যান্য মাদারবোর্ডেও এই পদ্ধতি পাওয়া যাবে।

 

Ctrl + A – Select All
Ctrl + B – Bold
Ctrl + C – Copy
Ctrl + D – Fill
Ctrl + F – Find
Ctrl + G – Bold
Ctrl + H – Replace
Ctrl + I – Italic
Ctrl + K – Insert a hyperlink
Ctrl + N – New workbook
Ctrl + O – Open
Ctrl + P – Print
Ctrl + R – Nothing right
Ctrl + S – Save
Ctrl + U – Underlined
Ctrl + V – Paste
Ctrl W – Close
Ctrl + X – Cup
Ctrl + Y – Repeat
Ctrl + Z – Cancel
F1 – Help
F2 – Edition
F3 – Paste the name
F4 – Repeat the last action
F4 – When entering a formula, switch between absolute / relative references
F5 – Goto
F6 – Next Pane
F7 – Spell Check
F8 – Extension of the mode
F9 – Recalculate all workbooks
F10 – Activate Menubar
F11 – New graph
F12 – Save As
Ctrl +: – Insert the current time
Ctrl +; – Insert the current date
Ctrl + “- Copy the value of the cell above
Ctrl + ‘- Copy the formula from the cell above
Shift – Offset Adjustment for Additional Functions in the Excel Menu
Shift + F1 – What is it?
Shift + F2 – Edit cell comment
Shift + F3 – Paste the function into the formula
Shift + F4 – Search Next
Shift + F5 – Find
Shift + F6 – Previous Panel
Shift + F8 – Add to the selection
Shift + F9 – Calculate the active worksheet
Shift + F10 – Popup menu display
Shift + F11 – New spreadsheet
Shift + F12 – Save
Ctrl + F3 – Set name
Ctrl + F4 – Close
Ctrl + F5 – XL, size of the restore window
Ctrl + F6 – Next Workbook Window
Shift + Ctrl + F6 – Previous Workbook Window
Ctrl + F7 – Move window
Ctrl + F8 – Resize Window
Ctrl + F9 – Minimize the workbook
Ctrl + F10 – Maximize or Restore Window
Ctrl + F11 – Inset 4.0 Macro sheet
Ctrl + F1 – Open File
Alt + F1 – Insert a graph
Alt + F2 – Save As
Alt + F4 – Output
Alt + F8 – Macro dialog
Alt + F11 – Visual Basic Editor
Ctrl + Shift + F3 – Create a name using the names of row and column labels
Ctrl + Shift + F6 – Previous Window
Ctrl + Shift + F12 – Printing
Alt + Shift + F1 – New spreadsheet
Alt + Shift + F2 – Save
Alt + = – AutoSum
Ctrl + `- Toggle value / display of the formula
Ctrl + Shift + A – Insert the argument names in the formula
Alt + down arrow – automatic view list
Alt + ‘- Format Style Dialog
Ctrl + Shift + ~ – General Format
Ctrl + Shift +! – Comma format
Ctrl + Shift + @ – Time Format
Ctrl + Shift + # – Date Format
Ctrl + Shift + $ – Currency Format
Ctrl + Shift +% – Percentage Format
Ctrl + Shift + ^ – Exponential Format
Ctrl + Shift + & – Place the border of the outline around the selected cells
Ctrl + Shift + _ – Delete the border of the contour
Ctrl + Shift + * – Select the current region
Ctrl ++ – Insert
Ctrl + – – Delete
Ctrl + 1 – Format of the cell dialog
Ctrl + 2 – Bold
Ctrl + 3 – Italic
Ctrl + 4 – Underlined
Ctrl + 5 – Strikethrough
Ctrl + 6 – Show / Hide Objects
Ctrl + 7 – Show / Hide Standard Toolbar
Ctrl + 8 – Toggle Outline symbols
Ctrl + 9 – Hide lines
Ctrl + 0 – Hide columns
Ctrl + Shift + (- Show lines
Ctrl + Shift +) – Show columns
Alt or F10 – Activate the menu
Ctrl + Tab – In the toolbar: Next toolbar
Shift + Ctrl + Tab – In the toolbar: Previous toolbar
Ctrl + Tab – In a workbook: activate the next workbook
Shift + Ctrl + Tab – In a Binder: Activate Previous Binder
Tab – Next tool
Shift + Tab – Previous tool
Enter – Make the order
Shift + Ctrl + F – Font drop-down list
Shift + Ctrl + F + F – Format Cell Dialog Box Font Tab
Shift + Ctrl + P – Point Size Drop-down list.
Manguay Center the reference centers

শর্ট কাট দিয়ে আপনার সময় বাঁচান!

Ctrl + a – সব নির্বাচন করুন
Ctrl + b – সাহসী
Ctrl + c – কপি
Ctrl + d – পূরণ
Ctrl + f – খুঁজুন
Ctrl + g – বোল্ড
Ctrl + h – প্রতিস্থাপন
Ctrl + i – ইটালিক
Ctrl + কে – একটি হাইপারলিংক সন্নিবেশ করুন
Ctrl + n – নতুন ওয়ার্কবুক
Ctrl + o – খোলা
Ctrl + p – প্রিন্ট
Ctrl + r – কিছুই ঠিক না
Ctrl + s – সংরক্ষণ করুন
Ctrl + u – রেখাঙ্কিত
Ctrl + v – পেস্ট
Ctrl w – বন্ধ
Ctrl + x – কাপ
Ctrl + এবং – পুনরাবৃত্তি
Ctrl + z – বাতিল করুন
এফ – সাহায্য
F2-সংস্করণ
F3 – নাম পেস্ট করুন
F4 – শেষ পদক্ষেপ পুনরাবৃত্তি করুন
F4 – একটি সূত্র প্রবেশ করার সময়, পরম / আপেক্ষিক রেফারেন্স এর মধ্যে পরিবর্তন করুন
F5 – যান
F6 – পরবর্তী পেইন
F7 – বানান পরীক্ষা
F8 – মোড এক্সটেনশন
F9 – recalculate সব workbooks
এফ – মেনু-বার সক্রিয়
F11 – নতুন গ্রাফ
F12 – সংরক্ষণ করুন
Ctrl +: – বর্তমান সময় সন্নিবেশ করুন
Ctrl +; – বর্তমান তারিখ সন্নিবেশ করুন
Ctrl + “- উপরের সেলের মান কপি করুন
Ctrl + ‘- উপরের সেল থেকে ফর্মুলা কপি করুন
এক্সেল মেনুতে অতিরিক্ত ফাংশন জন্য শিফট – অফসেট সমন্বয়
শিফট + এফ – এটা কি?
শিফট + f2 – সেল কমেন্ট সম্পাদনা করুন
শিফট + f3 – ফাংশন পেস্ট পেস্ট করুন
শিফট + f4 – পরবর্তীতে অনুসন্ধান করুন
শিফট + f5 – খুঁজুন
শিফট + f6 – পূর্ববর্তী প্যানেল
শিফট + f8 – নির্বাচনে যোগ করুন
শিফট + f9 – সক্রিয় ওয়ার্কশিট গণনা করুন
শিফট + এফ – পপ-আপ মেনু প্রদর্শন
শিফট + f11 – নতুন স্প্রেডশীট
শিফট + f12 – সংরক্ষণ করুন
Ctrl + f3 – নাম নির্ধারণ করুন
Ctrl + f4 – বন্ধ
Ctrl + f5 – xl, পুনরুদ্ধার উইন্ডোর আকার
Ctrl + f6 – পরবর্তী ওয়ার্কবুক উইন্ডো
শিফট + ctrl + f6 – পূর্ববর্তী ওয়ার্কবুক উইন্ডো
Ctrl + f7 – উইন্ডো স্থানান্তর করুন
Ctrl + f8 – উইন্ডোর আকার পরিবর্তন করুন
Ctrl + f9 – ওয়ার্কবুক কমাও
Ctrl + এফ – উইন্ডো বড় করুন অথবা পুনরুদ্ধার করুন
Ctrl + f11 – ইনসেট 4.0 ম্যাক্রো শীট
Ctrl + f1 – খোলা ফাইল
Alt + এফ – একটি গ্রাফ সন্নিবেশ করুন
Alt + f2 – সংরক্ষণ করুন
Alt + f4 – আউটপুট
Alt + f8 – ম্যাক্রো সংলাপ
Alt + f11 – ভিজুয়াল বেসিক এডিটর
Ctrl + shift + f3 – সারি এবং কলাম লেবেলের নাম ব্যবহার করে একটি নাম তৈরি করুন
Ctrl + shift + f6 – পূর্ববর্তী উইন্ডো
Ctrl + shift + f12 – মুদ্রণ
Alt + শিফট + এফ – নতুন স্প্রেডশীট
Alt + শিফট + f2 – সংরক্ষণ করুন
পুরাতন + = – autosum
Ctrl + ‘- টোগল মান / সূত্রের প্রদর্শন
Ctrl + shift + a – সূত্রের মধ্যে আর্গুমেন্ট নাম সন্নিবেশ করুন
Alt + ডাউন অ্যারো – স্বয়ংক্রিয় ভিউ তালিকা
Alt + ‘- ফরম্যাট স্টাইল ডায়লগ
Ctrl + shift + ~ – সাধারণ ফরম্যাট
Ctrl + shift + – কমা ফরম্যাট
Ctrl + shift + @ – সময় বিন্যাস
Ctrl + shift + # – তারিখের বিন্যাস
Ctrl + shift + $ – মুদ্রার বিন্যাস
Ctrl + shift +% – শতাংশ বিন্যাস
Ctrl + shift + ^ – সূচক বিন্যাস
Ctrl + shift + & – নির্বাচিত কোষের চারপাশে রূপরেখা সীমানা স্থাপন করুন
Ctrl + shift + _ – কনট্যুর সীমানা মুছে ফেলুন
Ctrl + shift + * – বর্তমান অঞ্চল নির্বাচন করুন
Ctrl ++ – সন্নিবেশ করুন
Ctrl + – – মুছে ফেলুন
Ctrl + 1-সেল ডায়লগের বিন্যাস
Ctrl + 2-বোল্ড
Ctrl + 3-ইটালিক
Ctrl + 4-রেখাঙ্কিত
Ctrl + 5-স্ট্রাইকথ্রু
Ctrl + 6-বস্তু প্রদর্শন / আড়াল করা হবে
Ctrl + 7-স্ট্যান্ডার্ড টুলবার প্রদর্শন / আড়াল করা হবে
Ctrl + 8-টগল রূপরেখা চিহ্ন
Ctrl + 9-লাইন লুকান
Ctrl + 0-কলাম আড়াল করুন
Ctrl + shift + (-লাইন দেখাও
Ctrl + shift +) – কলাম দেখাও
Alt বা এফ – মেনু সক্রিয় করুন
Ctrl + ট্যাব – টুলবারে: পরবর্তী টুলবার
Shift + ctrl + ট্যাব – টুলবারে: পূর্ববর্তী টুলবার
Ctrl + ট্যাব – একটি ওয়ার্কবুক: পরবর্তী ওয়ার্কবুক সক্রিয় করুন
Shift + ctrl + ট্যাব – একটি বাইন্ডার: পূর্ববর্তী বাইন্ডার সক্রিয় করুন
ট্যাব – পরবর্তী টুল
শিফট + ট্যাব – পূর্ববর্তী টুল
প্রবেশ করুন – অর্ডার করুন
শিফট + ctrl + f – ফন্ট ড্রপ-ডাউন তালিকা
শিফট + ctrl + f + f – ফরম্যাট সেল বক্স ফন্ট ট্যাব
শিফট + ctrl + p – পয়েন্টের আকার ড্রপ-ডাউন তালিকা ।

আপনাদের মধ্যে যারাই কম্পিউটারে লেখা লেখি করেন তাদের জন্য এই পোস্টটি অনেক কাজের একটি পোস্ট। যেমন কম্পিউটারের কীবোর্ড দিয়ে লেখার সময় আমাদের প্রায় সময়ই বিভিন্ন SYMBOL বা চিহ্ন ব্যবহার করতে হয় কিন্তু আমাদের অনেকেই এই চিহ্নগুলো কিভাবে একটি নির্দিষ্ট লেখার ভিতর দিতে হয় তা জানিনা!! তাই আজ আমরা আপনাদের দেখাবো কিভাবে খুব দ্রুত কীবোর্ড দিয়ে শটকাট কি ব্যবহার করে যেকোনো লেখার ভিতর বিভিন্ন প্রয়োজনীয় SYMBOL বা চিহ্ন দেওয়া যায়। বন্ধুরা আমরা নিচে একটি লিস্ট দিয়ে দিলাম যেখানে বেশ কিছু প্রয়োজনীয়  SYMBOLS বা চিহ্নের শর্টকাট কী রয়েছে। আপনারা সেখানে দেওয়া নাম্বার গুলো মনে রাখলেই খুব সহজে এই চিহ্ন গুলো লেখার মাঝে ব্যবহার করতে পারবেন। তবে এর জন্য আপনাকে কীবোর্ড এর Alt বাটন চেপে ধরে রেখে কীবোর্ড এর ডানে অবস্থিত নুমেরিক বাটন গুলো থেকে ১২৩৪  ইত্যাদি নাম্বার ব্যবহার করতে হবে। তাহলে নিচে দেওয়া শর্টকাট কী গুলো দেখে দেখে আপনার প্রয়োজনীয় চিহ্নের নাম্বারটি মনে রেখে দিন।

Alt + 0153….. ™… trademark symbol
Alt + 0169…. ©…. copyright symbol
Alt + 0174….. ®….registered trademark symbol
Alt + 0176 …°……degre­e symbol
Alt + 0177 …±….plus-or­-minus sign
Alt + 0182 …¶…..paragraph mark
Alt + 0190 …¾….fractio­n, three-fourths
Alt + 0215 ….×…..multi­plication sign
Alt + 0162…¢….the cent sign
Alt + 0161…..¡….. .upside down exclamation point
Alt + 0191…..¿….. ­upside down question mark
Alt + 1………..smiley face
Alt + 2 ……☻…..bla­ck smiley face
Alt + 15…..☼…..su­n
Alt + 12……♀…..f emale sign
Alt + 11…..♂……m­ale sign
Alt + 6…….♠…..s­pade
Alt + 5…….♣…… ­Club
Alt + 3…………. ­Heart
Alt + 4…….♦…… ­Diamond
Alt + 13……♪…..e­ighth note
Alt + 14……♫…… ­beamed eighth note
Alt + 8721…. ∑…. N-ary summation (auto sum)
Alt + 251…..√…..s­quare root check mark
Alt + 8236…..∞….. ­infinity
Alt + 24…….↑….. ­up arrow
Alt + 25……↓…… ­down arrow
Alt + 26…..→…..ri­ght arrow
Alt + 27……←…..l­eft arrow
Alt + 18…..↕……u­p/down arrow
Alt + 29……↔… left right arrow
Alt + 0128….€…. Euro